ড্ৰাই কেক পছন্দ করেন না এমন মানুষ কমই আছেন। অন্ততপক্ষে টোস্ট বিস্কুটের সাথে মোকাবেলায় এই কুড়মুড়ে স্বাদের মিষ্টি কেক বিস্কুট এগিয়েই থাকে। বেকারি থেকে বেশ দাম দিয়েই কেজি দরে আমরা এই বিস্কুট কিনে খাই। কিন্তু চাইলে খুব সহজেই ঘরে এর অর্ধেক দামে আপনি নিজেই বানিয়ে নিতে পারেন। আসলে আপনি যদি প্লেইন কেক ঘরে বানাতে পারেন তাহলে ড্ৰাই কেক বানানো আপনার জন্য হবে ছু-মন্তর। কারণ কেক টোস্ট করে বা ডাবল বেক করে মুচমুচে করে নিলেই হয়ে যাবে ড্ৰাই কেক। চলুন জেনে নেই পুরো প্রস্তুত প্রণালী।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের বটতলার খাবারের সুখ্যাতি তো আমাদের সবার জানা। ওখানকার খাবারগুলো সবই স্পেশাল।..তারমধ্যে এই চিকেন ভর্তা তো খুবই জনপ্রিয়। চলুন আজকে সেই ভর্তাটির রেসিপি জেনে নেয়া যাক।

আমরা অনেক সময় বেশি করে পরোটা বানিয়ে ডিপ ফ্রিজে সংরক্ষণ করে রাখি। কিন্তু বাসায় বানানো পরোটা আর দোকান থেকে কেনা প্যাকেট করা ফ্রোজেন পরোটার মধ্যে কিন্তু আকাশ-পাতাল ফারাক থাকে। ওই পরোটা গুলো বেশ নরম, মিষ্টি মিষ্টি হয় আর ভাজতে আলাদা কোনো তেলের দরকার হয় না। তাই এবারে নিয়ে এলাম ১০০% দোকানের কেনা ফ্রোজেন পরোটার রেসিপি। এই রেসিপিতে একবার বানিয়ে দোকানের কেনা ফ্রোজেন পরোটার সাথে মিলিয়ে দেখবেন, নিজেই আলাদা করতে পারবেন না। কিন্তু তার জন্য অবশ্যই উপকরণগুলো সঠিকভাবে ব্যবহার করতে হবে। চলুন দেখে নেই কি কি লাগবে।

আমাদের দেশের অধিকাংশ ছোট ছোট হোটেলে সকালের নাস্তার জন্য একপ্রকার বিশেষ সবজি রান্না হয় যেটাকে সাধারণত সবজি ভাজি বা ডাল ভাজি বলে ডাকা হয়। ডালভাজি বলার কারণ এই সবজি রান্নাতে ছোলারডাল ব্যবহার করা হয়। খেতে যে কি মজার তা যে না খেয়েছে সে কিছুতেই বুঝবে না। তাই এবারে আপনাদের জন্য আমার আয়োজন বাংলা হোটেল স্টাইলে সকালের নাস্তার সবজি ভাজি/ডাল ভাজি…হুবুহু হোটেলের স্বাদে।সকালের নাস্তায় পরোটা/রুটি/লুচির সাথে জাস্ট জমে যাবে।

এবারে আপনাদের জন্য জামালপুরের বিখ্যাত গরুর মাংসের ভর্তার রেসিপি নিয়ে এলাম। কোরবানির ঝুরা মাংস বা দাওয়াতের পর বেঁচে যাওয়া গরু/খাসির মাংস দিয়ে আপনি এই মজার ভর্তাটা বানাতে পারেন। গরম ভাতের সাথে সত্যিই অতুলনীয়।

অনেকরকম পোলাও তো আমরা হরহামেশা রান্না করে থাকি। তবে শীতকালের স্পেশাল পোলাও হলো সবজি পোলাও । শীতে বাজার ভর্তি থাকে বাহারি সব সবজি দিয়ে তখন চাইলে খুব সহজেই এই পোলাও টা বানিয়ে নিতে পারেন। আর মজার ব্যাপার হলো কোনো সাইড ডিশ ছাড়া এমনিতেই পোলাওটা অনেক মজার হয় খেতে, চাইলে বাচ্চার টিফিনেও দিতে পারবেন।

আমার খুব প্রিয় খাবার এটা….. প্রায়ই বাসায় রান্না করি। খাসির মাংস ছাড়াও গরু বা ল্যামের মাংস,মাঝেমধ্যে মুরগীর মাংস বা মুরগির গিলা, কলিজা, পাখনা, পা এবং বুকের হাড্ডিওয়ালা অংশ দিয়ে রান্না করি। রুটি হোক, পরটা হোক আর ভাত হোক সবকিছুর সাথেই চমৎকার লাগে। এই রান্নাতে ডাল আর মাংসের কোনো ধরাবাঁধা মাপ নেই। চাইলে ডাল বেশি মাংস কম, মাংস বেশি ডাল কম বা দুটোই সমান সমান রাখতে পারেন।

আমাদের দেশীয় মিষ্টি বানানোর কথা শুনলে আমরা কমবেশি সবাই কিছুটা ঘাবড়ে যায়। কারণ মিষ্টি বানানোর পদ্ধতিগুলো সহজ হলেও মোটামুটি প্রাকটিস ও অভিজ্ঞতা না থাকলে পারফেক্ট মিষ্টি বানানো অতটাও সহজ নয়। বিশেষ করে ছানার মিষ্টি গুলো। কারণ চান পারফেক্ট না হলে মিষ্টি কিছুতেই ভালো হয় না। তাই এবারে আপনাদের জন্য ছানা ছাড়া একটা সহজ মিষ্টির রেসিপি নিয়ে এলাম। ময়দা দিয়ে একদম মিষ্টির দোকানের মতো পারফেক্ট বালুসাই/বালুশাহী যার বাইরেটা হালকা ক্রিস্পি ও ভেতরটা তুলতুলে নরম রসালো হবে। তবে হ্যাঁ, পরিমাপটা অবশ্যই ঠিক ঠিক নিতে হবে।

খুব সহজ আর চটজলদি তৈরী করা যায় এমন মিষ্টান্নের তালিকায় ফ্রুট কাস্টার্ড খুবই জনপ্রিয়। বাচ্চা থেকে বড় সবাই খুব পছন্দ করে খায়। যেকোনো অনুষ্ঠানে মিষ্টি মুখ করতে বানিয়ে নিতে পারেন এই মজাদার ডেজার্টটি। বিশেষ করে গরমের সময় খেতে তো খুব ভালো লাগবে ….চলুন তাহলে বানিয়ে নেয়া যাক।

ক্যারামেল পুডিং বা ডিমের কাস্টার্ড পুডিং… আমরা কমবেশি সবাই বানাতে পারি। তবু সবসময় কি পারফেক্ট পুডিং হয় সেটা? একটা পারফেক্ট ক্যারামেল এগ পুডিং মানেই হলো…তুলতুলে জিগলি টেক্সচার যেটা মুখে দিলেই মিলিয়ে যাবে। ক্যারামেলের কালারটাও হবে সুন্দর লাইট, কোনো তিতকুটে ভাব থাকবে না এবং সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ পুডিং এর চারপাশে কোনো রকম ছিদ্র থাকবে না। not a single one! সাথে চারপাশ সুন্দর একটা লাইট ক্রীম কালার এর থাকবে, সেই রকম একটা পুডিং এর টিপস সহ রেসিপি নিয়ে আমার আজকের আয়োজন। চলুন দেখে নেয়া যাক।