পহেলা বৈশাখের দিন কয়েকটি ভর্তার আয়োজন না করলে বাঙালির আয়োজনটা যেন ঠিক পরিপূর্ণ হয় না। ইলিশ মাছের আয়োজনের সাথে ভর্তার আয়োজনটাও কিন্তু বেশ মানাসই। তাই আজ রয়েছে ইলিশ মাছের সাথে বেগুন ভাজা দিয়ে একটা মজার ভর্তার রেসিপি। একটু স্পেশাল কিন্তু বাঙালি ঢঙয়ের মজার এই ভর্তার রেসিপিটি চলুন দেখে নিই…

আমাদের বিকেলের নাস্তায় একটু মুখোরোচক কিছু না হলে যেন চলেই না। আর চায়ের সাথে যদি চপ, পুরি অথবা কচুরি জাতীয় কিছু থাকে তাহলে তো কথায় নেই। আজকের রেসিপি খাস্তা মটর কাচরি অথবা কচুরি তেমনই মুখোরোচক জাতীয় একটি খাবার। এটাকে অবশ্য মটর পুরিও বলা হয়। কোনো রকম বেকিং সোডা/পাউডার ছাড়াই ফুলে একেকটা ঢোল আর বাইরের অংশ টা একদম পারফেক্ট খাস্তা হয়েছে। চলুন দেখে নেই step by step instructions ও ছবি সহ রেসিপিটি :)

বিকেলের নাস্তায় চায়ের সাথে হালকা কিছু নাস্তা যেন আমাদের নিত্যদিনের জীবনের সাথে মিশে আছে। গরম গরম চায়ের সাথে চিড়া ভাজা, ডাল ভাজা, ঝুড়ি ভাজা, চানাচুর এগুলো খেতে কিন্তু দারুন লাগে। আজ আপনার সাথে শেয়ার করবো আলু ঝুড়ি ভাজা রেসিপি। ছোটবেলায় স্কুল শেষে প্রায়ই কিনে খেতাম। স্কুলের সামনে দাঁড়ানো মামাদের কাছ থেকে একটুকরো পেপারে ১ অথবা ২ টাকায় কিনে নিতাম আর খুড়মুড় করে খেতে খেতে চলে আসতাম বাড়ি। ছোটবেলার এ দিনগুলো সত্যিই অনেক সুন্দর ছিল। আজ চলুন দেখে নেই মজাদার এ আলু ঝুড়ি ভাজা রেসিপিটি।

ভর্তার কথা উঠলে সবার আগে বাঙালির মনে পড়ে আলুভর্তার নাম। এই খাবারটি বলতে গেলে সবার ঘরেই অহরহ হয়ে থাকে। ভর্তা সাধারণত একেকজন একেক ভাবে খেতে ভালোবাসেন এবং ভর্তা বানানোর পদ্ধতিও আলাদা আলাদা হয়ে থাকে। কিন্তু আলুভর্তা মোটামুটি সবাই একইভাবে বানান। তবু আজকে ৭ টি ভিন্ন স্বাদে ৭ রকম পদ্ধতিতে এই আলুভর্তার রেসিপি নিয়ে এলাম আপনাদের জন্য।

শীত মানেই কব্জি ডুবিয়ে সবজি খাবার দিন। কিন্তু বাচ্চাদেরকে বোঝাবে কে? কি শীত কি বর্ষা আর কি গরম……সবজির নামেই সব ভেংচি কাটে। কিন্তু আলু মোটামুটি সব বাচ্চারাই খায় বা খেতে পছন্দ করে। আবার মুচমুচে খাবার বা স্নাক্স টাইপ খাবার বেশ আগ্রহ করেই খায়। তাই বাচ্চাকে যখন সবজি খাওয়াতে হুতু তু তু তু বলে দৌড়াতে হয় তখন চাইলে যে কোনো সবজি (বাচ্চাদের পছন্দের/অপছন্দের) দিয়ে এভাবে বানিয়ে খাওয়াতে পারেন। সাথে একটু চিজ বা পনির দিলে স্বাদ আরো বাড়বে। আশা করছি অতিরিক্ত বুদ্ধিমান বাচ্চা না হলে হাম হাম করে খেয়ে নিবে। এছাড়া বিকেলের নাস্তায় স্বাস্থ্যকর কিছু খেতে চাইলেও এই নাগেটসগুলো ওভেনে বেক করে পরিবেশন করা যাবে।

আস্সালামুআলাইকুম। সবাইকে স্বাগত জানাচ্ছি আমার আজকের এপিসোডে। আপনাদের জন্য খুবই হেলদি এবং টেস্টি একটা রাস্তা তৈরি করে দেখাবো যেটা আপনারা সকাল বিকেলের নাস্তা অথবা বাচ্চার টিফিনের জন্য বানাতে পারেন। আপনারা সবাই জানেন ডিম আমাদের জন্য খুবই স্বাস্থকর এবং উপকারী একটা খাবার। বিশেষ করে সকালের নাস্তায় যদি ডিম খাওয়া যায় তাহলে অনেক্ষন যাবৎ পেট ভরা থাকে আর ক্ষুধাও কম লাগে এবং এটা আপনার অল্পতেই পেটটাকে ভরিয়ে দেয়।