মুচমুচে আলুর ঝুড়ি ভাজা

মুচমুচে আলুর ঝুড়ি ভাজা
মুচমুচে আলুর ঝুড়ি ভাজা

চলুন আজ দেখে নেই আলু দিয়ে তৈরী মজাদার একটা স্নাক্স এর রেসিপি। এটা খেতে অনেকটা আলুর চিপস এর মতোই। তবে মশলা ও বাদাম দিয়ে মাখালে বেশ অন্যরকম একটা স্বাদ পাওয়া যাবে। রেসিপিটা থাকলো আপনাদের জন্য 🙂

উপকরণ :


[tie_list type=”plus”]

  • আলু বড় সাইজের ১ টি
  • মটরশুঁটি ১ মুঠো
  • বাদাম ১ মুঠো
  • তেল ১ কাপ ভাজার জন্য

[/tie_list]

মশলা তৈরী : ১/৪ চা চামচ করে আমচুর পাউডার , বিট লবন , আদা গুঁড়া, টেস্টিং সল্ট, শুকনা মরিচ গুঁড়া , টালা হলুদ গুঁড়া, ভাজা জিরা গুঁড়া ও শুকনা লেবুর পাতা হাতে গুঁড়া করা একসাথে একটা ছোট বাটিতে মিলিয়ে নিন। তারপর এতে পরিমান মতো লবন দিয়ে মিলিয়ে নিন। হয়ে গেলো আপনার মশলা তৈরী। একটা ছোট কৌটায় ভোরে রেখে দিতে পারেন পরে প্রয়োজন মতো ব্যবহার করবেন।

প্রণালী :


১। আলু ছিলে একবার ধুয়ে নিন। একটা বাটিতে ৩/৪ কাপ ঠান্ডা বা নরমাল পানি নিয়ে নিন। তারপর আলুগুলোকের যতটা সম্ভব লম্বা ও পাতলা ঝুড়ি করে আপনার পক্ষে কাটা সম্ভব কেটে নিন। কাটা হলে সরাসরি পানির মধ্যে রাখবেন এবং এভাবেই রেখে দিন ৫ মিনিটের মতো। এতে করে যেটা হবে সেটা হলো আলুর যে বাড়তি স্টার্চ গুলো আছে সেগুলো বের হয়ে যাবে। আলু গুলো পানি থেকে ছেঁকে উঠানোর সময় আপনি দেখতে পাবেন পানির নিচে সাদা সাদা কিছু তলানি পড়ে আছে। ওগুলোই স্টার্চ আর আলুতে স্টার্চ বেশি থাকলে ভাজার সময় আঠালো হয়ে যায় ও খুব তাড়াতাড়ি বাদামি হয়ে যায়। তাতে ভেতরে ঠিকমতো ভাজা হয় না আরভাজার পর নরম হয় মুচমুচে ও হয় না।

২। একটা ছোট গর্তওয়ালা কড়াইতে তেল দিয়ে মিডিয়াম হাই-হিটে গরম করে নিন। আলু গুলো পানি থেকে তুলে ভালো করে পানি ঝড়িয়ে নিন। ভালো হয় কিচেন টাওয়েল বা টিস্যুর উপর রেখে পানি ভালোমতো শুকিয়ে নিতে পারলে। তাহলে আর তেলে দেয়ার পর খামোখা তেল ছিটাছিটি হবে না। তারপর এতে অল্প অল্প করে আলু দিয়ে ভেজে সোনালী করে ভেজে তুলে নিন। একবারে বেশি করে আলু দিবেন না।

৩। এখন একইভাবে বাদাম ও মটরশুঁটি ভেজে নিতে হবে। মটরশুঁটি গুলো ভালো করে কাপড় বা টিস্যু দিয়ে শুকিয়ে নেবেন। চাইলে এগুলো তেলে না ভেজে শুকনা তাওয়াতেও ভেজে নিতে পারেন।

৪। এবার একটা বড় বাটিতে আলু ভাজা  , মটরশুঁটি ও বাদাম দিয়ে মিশিয়ে নিন। তারপর যে মশলাটা তৈরী করে রেখেছিলেন ওটা থেকে আপনার স্বাদ অনুযায়ী কিছু মশলা এর উপর ছড়িয়ে দিয়ে ঝাকিয়ে ঝাকিয়ে মিশিয়ে নিন। ব্যাস, কাহিনী খতম এবার খাওয়ার পালা 😀